প্রতিদিনের জীবনযাত্রায় কিছুটা রদবদল করতে পারলেই, সহজে দূরে সরিয়ে রাখা যায় ক্যান্সারকে

ক্যান্সার একটি মা’রণব্যা’ধি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অ’নুযায়ী, ২০১৮ সালে বিশ্বের ৯.৬ মিলিয়ন মানুষ ক্যান্সারের কবলে প্রাণ হা’রিয়েছেন। প্রত্যেক বছর নতুন করে ক্যান্সার আ’ক্রা’ন্ত হচ্ছেন তিন লাখ মানুষ।অথচ প্রতিদিনের জীবনযাত্রায় কিছুটা রদবদল করতে পারলে দূরে সরিয়ে রাখা যায় ক্যান্সারকে।

আসুন জেনে নেওয়া যাক, ক্যান্সার প্রতিরো’ধসহ আমাদের সামগ্রিকভাবে ভাল রাখতে সাহায্য করে এমন কিছু ফল ও সবজি সম্পর্কে।অবশ্য তালিকা মিলিয়ে নিয়ম করে প্রত্যেক দিনই যে এসব সবজি ও ফল খেতে হবে তা নয়, চেষ্টা করবেন প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় মৌসুমী সবজি ও ফল রাখার।

যেমন- কলা: সারা বছর পাওয়া যায়। অন্য কোনও শারীরিক সমস্যা না থাকলে প্রতিদিন কলা খাওয়া যেতে পারে। সেলেনিয়ামের সক্রিয় যৌগের এক শ’ক্তিশালী উৎস এই ফল। রোগ প্রতিরো’ধ ব্যবস্থাকে ম’জবু’ত করার পাশাপাশি ক্যান্সার কো’ষ বিন’ষ্ট করতে পারে ।

আপেল: দাম বেশি হলেও সারা বছরই এই ফল বাজারে মিলবে। এতে আছে প্রো’সায়ানি’ডিনস, যা ক্যান্সার প্রতিরো’ধ করতে কার্যকর।ডালিম বা বেদানা: এই ফলে থাকে ফলিফেনল নামে এক যৌগ, যা ক্যান্সার সৃ’ষ্টকারী কো’ষ ধ্বং’স করতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিতে পারে।

কালো আঙুর: এতে আছে রে’সভে’রাট্র’ল, যা ক্যান্সারের ঝুঁ’কি কমিয়ে সামগ্রিকভাবে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে।কমলালেবু: এটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ক্যান্সার ফা’ইটা’র। কমলালেবুর কোয়ায় থাকা ২_হা’ইড্র’ক্সিফ্ল্যা’ভনয়ে’ড (২_এইচএফ) স্ত’ন ও ফুসফুস ক্যান্সার কো’ষ ধ্বং’স করতে কার্যকর ভূমিকা নেয়।

কমলালেবুর রস নয়, লেবুর কোয়া চি’বিয়ে খেলে তবেই ২_হা’ইড্রক্সি’ফ্ল্যাভ’নয়েড পাওয়া যাবে। সারা বছর কমলা লেবু পাওয়া যায় না। তাই যেকোনও লেবু, তা সে বাতাবি লেবু হোক বা পাতিলেবু, খেলে সামগ্রিক ইমি’উনি’টি জো’রদার হয়।

টমেটো: এতে লা’ইকো’পিন নামক অ্যা’ন্টিঅ’ক্সিডে’ন্ট রয়েছে, যা ক্যান্সারের ম’হাশ’ত্রু। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় টমেটো রাখতে ভুলবেন না। ব্রকোলি: আসলে বিলেতি এই সবজি এখন আমাদের দেশেও সূলভ। এই সবুজ রঙের সবজিটি ইনডো’ল-৩ কা’রবিনো’ল নামক ফা’ইটোকে’মিক্যালসের এক অন্যতম ভা’ণ্ডার। এই উপাদানটি ক্যান্সার কো’ষ ধ্বং’স করতে পারে।

বিট: এতে আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিটা সা’য়ানিন, যা ক্যান্সারের বিরু’দ্ধে প্রতিরো’ধ গড়ে তু’লতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়।নটে শাক: যার বিজ্ঞানসম্মত নাম অ্যা’মারা’ন্থাস ভিরিডি‌ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ক্যান্সাররো’ধ’ক।বি’ট বা ব্রকো’লি না পেলেও সূলভে বাজারে লাল বা সবুজ ন’টে শাক পাবেন। সপ্তাহে ৩/ ৪ দিন এই শাক খেলে ক্যান্সারের বিরু’দ্ধে প্রতিরো’ধ ব্যবস্থা জো’রদা’র হবে।

তবে শুধু ক্যানসার রো’ধক খাবার খেলেই চলবে না, সিগারেটসহ তামাককে জীবন থেকে বিদায় জানাতে হবে। ওজন ঠিক রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা করা জরুরি। সেই সঙ্গে মন ভাল রাখাও জরুরি। কেননা, মা’নসি’ক চা’প ক্যান্সারের ঝুঁ’কি বাড়ায়। সূত্র: আনন্দবাজার