ধি’ক্কার জানাই তোদের মত র’’ক্ত চু’ষা ডা’ক্তা’রদের।

ধিক্কার জানাই তোদের মত র’ক্ত চুষা ডাক্তারদের। ১ ল্যাপটপেই ১৫০০০ ভুয়া করো’না রিপোর্ট।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের প্রতারক চিকিৎসক ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিয়েছে করো’না টেস্টের নামে।

তিতুমীর কলেজে তাঁবু বসিয়ে হাজার হাজার স্যাম্পল কালেকশন করেছিলো, কিন্তু কোন নমুনা পরীক্ষা না করেই নেগেটিভ / পজিটিভ রেজাল্ট দিয়েছে।

এছাড়া জেকেজি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত হয়ে তারা একই কাজ কাছে। এই বাটপার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তারা বাটপারি করেছে।

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে কোনো পরীক্ষা না করেই প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ জনকে করো’নার টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করেছে।

এখনো পর্যন্ত এই সাবরিনাকে আট’ক করা হয়নি। হাজার হাজার মানুষের জীবন হু’মকির মধ্যে ফেলিয়ে সে ও তার স্বামী বিলাসবহুল জীবনযাপন করে বেড়াচ্ছে।

কেন আট’ক হচ্ছে না? পিছন থেকে কে সা’পোর্ট দিচ্ছে? এই প্রতারকদের কে বা কারা’ প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত নিয়ে গেছে? এদের সকলকে ধরতে হবে।ধিক্কার জানাই তোদের মত র’ক্ত চুষা ডাক্তারদের। ১ ল্যাপটপেই ১৫০০০ ভুয়া করো’না রিপোর্ট।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের প্রতারক চিকিৎসক ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিয়েছে করো’না টেস্টের নামে।

তিতুমীর কলেজে তাঁবু বসিয়ে হাজার হাজার স্যাম্পল কালেকশন করেছিলো, কিন্তু কোন নমুনা পরীক্ষা না করেই নেগেটিভ / পজিটিভ রেজাল্ট দিয়েছে।

এছাড়া জেকেজি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত হয়ে তারা একই কাজ কাছে। এই বাটপার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তারা বাটপারি করেছে।

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে কোনো পরীক্ষা না করেই প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ জনকে করো’নার টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করেছে।

এখনো পর্যন্ত এই সাবরিনাকে আট’ক করা হয়নি। হাজার হাজার মানুষের জীবন হু’মকির মধ্যে ফেলিয়ে সে ও তার স্বামী বিলাসবহুল জীবনযাপন করে বেড়াচ্ছে।

কেন আট’ক হচ্ছে না? পিছন থেকে কে সা’পোর্ট দিচ্ছে? এই প্রতারকদের কে বা কারা’ প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত নিয়ে গেছে? এদের সকলকে ধরতে হবে।