কক্সবাজা’রে আ’বা’সিক ক’টেজ থে’কে ৫২ না’রী-পু’রুষ আ’টক

কক্সবাজার শহরের লাইট হাউজ এলাকার আবাসিক কটেজ থেকে ৫২ জন নারী-পুরুষকে আ’টক করেছে পু’লিশ। শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে কক্সবাজার শহরের হোটেল-মোটেল জোনের লাইট হাউজ এলাকায় তিনটি কটেজে অ’ভিযান চালিয়ে তাদের আ’টক করা হয়েছে।

আ’টককৃতদের মধ্যে ৩১ জন নারী ও ২১ জন পুরুষ রয়েছে। পু’লিশ বলছে, আ’টককৃত এসব নারী-পুরুষ কটেজগু’লোতে অসামাজিক কার্যকলাপে জ’ড়িত রয়েছে। এসময় একটি কটেজ থেকে ইয়াবাও উ’’দ্ধার হয়েছে।

শুক্রবার রাতে এসব ত’থ্য জানান কক্সবাজারের অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার (প্রশা’সন) মো. রফিকুল ই’সলাম। অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার রফিকুল ই’সলাম জানান, ‘এক শ্রেণির আবাসিক কটেজ মালিক ও ম্যানেজারসহ সং’ঘব’’দ্ধ একটি চক্র হোটেল-মোটেল জোনের কটেজগু’লোতে দীর্ঘদিন ধ’রে অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে আসার খবরে পু’লিশের একটি দল অ’ভিযান চালায়।

শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চালানো অ’ভিযানে নারীসহ ৫২ জনকে আ’টক করা হয়। তিনি বলেন, ‘অসামাজিক কার্যকলাপ চালানোর অ’ভিযোগ উঠা আমির ড্রিম প্যালেস থেকে এক কর্মচারীসহ ৮ জন পুরুষ ও দুজন নারীকে আ’টক করা হয়।

মিম রিসোর্ট থেকে এক কর্মচারীসহ ১৩ জন পুরুষ ও ১৭ জন নারী এবং আজিজ গেস্ট ইন থেকে ১০ জন পুরুষ ও ২ জন নারীকে আ’টক করা হয়। এসময় আজিজ গেস্ট ইন কটেজের ম্যানেজারের ডেস্ক থেকে ৩৬০টি ইয়াবা উ’’দ্ধার হয়েছে।

এছাড়া মিম রিসোর্টের পার্শ্ববর্তী অ’জ্ঞাত (সাইনবোর্ড বিহীন) এক কটেজে অ’ভিযান চালানো হলেও ভেতরে থাকা লোকজন পেছনের গো’পন দরজা দিয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আ’টক করা সম্ভব হয়নি অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার বলেন, হোটেল-মোটেল জোনের কটেজগু’লো আবাসিক পর্যটন ব্যবসার আ’ড়ালে সং’ঘব’’দ্ধ একটি চক্র দীর্ঘদিন ধ’রে এ আসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে আসছিল। চক্রটি নানা কৌ’শলে কক্সবাজার শহরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নারীদের সংগ্রহ করে অ’সামাজিক কার্যকলাপে ব্যবহার করে আসছে। এধরনের অ’ভিযান সবসময় চলতে থাকবে।

কক্সবাজার সদর মডেল থা’নার ওসি ত’দন্ত বিপুল চন্দ্র দে জানান, গ্রে’’’প্তারকৃতদের প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবা’দ চলছে। জি’জ্ঞাসাবা’দ শে’ষে আ’টককৃতদের বি’রু’দ্ধে সংশ্লিষ্ট আ’ইনে মা’মলা করা হয়েছে। শনিবার সকালে তাদের কক্সবাজার আ’দালতে সোপর্দ করা হবে।