পর্নোগ্রাফির মতো কনটেন্ট আপ করলেই ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও বিনোদন প্ল্যাটফর্মগুলোতে পর্নোগ্রাফির কাছাকাছি যে সমস্ত কনটেন্ট আপ করা হয় সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিবি বলেন, আমাদের দেশের কৃষ্টি-সংস্কৃতি, সমাজিক মূল্যবোধের সঙ্গে সাংঘর্ষিক যে সমস্ত কনটেন্ট আপ করা হয়, সেগুলো এই ব্যাধিকে (ধর্ষণ) ছড়ানোর ক্ষেত্রে একটা ভূমিকা রাখছে বলে আমরা মনে করি। মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম দোরাইস্বামীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

ধর্ষণকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বিধান রাখা নিয়ে বিএনপির মন্তব্যের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি কি এটা পছন্দ করেনি যে, ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান করা হলো? বিএনপি যে বক্তব্য রেখেছে এতে প্রশ্ন দেখা দেয় এই আইন সংশোধন বিএনপির পছন্দ হয়নি।

তিনি বলেন, সরকার যেকোনো ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড রেখে আইন সংশোধন করেছে। কারণ, আপনারা জানেন বাংলাদেশে এক সময় এসিড নিক্ষেপ বেড়ে গিয়েছিল। যখন কঠোর শাস্তির বিধান রেখে আইন হলো তখন কিন্তু এসিড নিক্ষেপ কমে গেছে। এখন বলতে গেলে প্রায় এসিড নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে না। একইভাবে আইন সংশোধন করে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রাখার প্রেক্ষিতে আমি মনে করি, এ ধরনের অপরাধও অনেক কমে যাবে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, শুধু আইন সংশোধন করার মাধ্যমেই আমাদের কর্মকাণ্ড সীমাবদ্ধ রাখব না। আমরা জানি, বিচার যাতে দ্রুত হয় সেটার ওপরও সরকার গুরুত্বারোপ করছে। এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও এন্টারটেইনমেন্ট প্ল্যাটফর্মগুলোতে যেভাবে আমাদের দেশের কৃষ্টি-সংস্কৃতি, আমাদের সমাজের মূল্যবোধের সঙ্গে সাংঘর্ষিক এবং অনেক ক্ষেত্রে পর্নের কাছাকাছি যে সমস্ত কনটেন্ট আপ করা হয়, সেগুলো কিন্তু এই ব্যাধিকে ছড়ানোর ক্ষেত্রে একটা ভূমিকা রাখছে বলে আমরা মনে করি। তাই সেগুলোর বিষয়েও আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেব।