আর বাড়ি ফেরা হলো না, আদালত থেকে কারাগারে মিন্নি

অবশেষে ফাঁ’সির দ’ণ্ড মাথায় নিয়ে আদালত থেকে কারাগারে গেলেন বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হ’ত্যা মামলার সাত নম্বর আসামি স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে কু’পিয়ে হ’ত্যার ঘ’টনায় করা মামলায় মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁ’সির আদেশ দেন আদালত।

ফাঁ’সির দ’ণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, মো. রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯) ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯)। ফাঁ’সির আদেশের পরই মিন্নিকে হেফাজতে নেয় পুলিশ।

একই সঙ্গে মিন্নিকে গ্রে’ফতার দেখানো হয়। এরপর মিন্নিসহ সব আসামিকে আদালত থেকে কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ। এসব ত’থ্য নি’শ্চি’ত করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার নারী ও শিশু নি’র্যা’তন দ’ম’ন ট্রা’ইব্যু’নালের পাবলিক প্রসিকিউটর মোস্তাফিজুর রহমান বাবু।

তিনি বলেন, রিফাত শরীফ হ’ত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁ’সির আদেশ দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই মিন্নিকে পুলিশ হেফা’জতে নেয়া হয়। ফাঁসির দ’ণ্ডপ্রাপ্ত সবাইকে কারাগারে নিয়ে গেছে পুলিশ। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুর পৌনে ২টার দিকে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান।