বাংলাদেশে রপ্তানির অনুমতি না পাওয়ায় পচা পেঁয়াজ ফেলা হচ্ছে নদীতে

গত আটদিন ধরে ভারত সীমান্তে পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাকগুলি বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত রপ্তানির কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ফলে আজ সোমবার ও গতকাল রবিবার দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি হয়নি। একারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আসা বিভিন্ন পণ্যবাহী ভারতীয় ট্রাক চালকেরা জানান, ভারতের হিলির বালুপাড়া পাকিংয়ে পেঁয়াজ বোঝাই শতাধিক ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেছি। শুনেছি গত আটদিন ধরে বাংলাদেশে ঢুকতে পারেনি। লোড অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকার কারণে মোট ৩-৪ টন করে পেঁয়াজ পচে গেছে। পচা পেঁয়াজগুলো আবার সেখানকার ছোট যমুনা নদীতে ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ জানান, ভারতীয় কর্তৃপক্ষ গত ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ দেয়। এরপর ১৮ সেপ্টেম্বর এক সিদ্ধান্তে তারা জানায় শুধু মাত্র ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এলসি করা পেঁয়াজ হিলি স্থলবন্দর দিয়ে রপ্তানি করা হবে। এই প্রেক্ষিতে গত শনিবার এই বন্দর দিয়ে ২৪৬ মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। যার মধ্যে অধিকাংশই পেঁয়াজ পচে নষ্ট হয়েছে। তবে ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এলসি করা ১০ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি না দেওয়ায় এসব পেঁয়াজের চালান সীমান্তে আটকে আছে। আমরা ভারতের ব্যবসায়ীদের বলেছি আপনারা আপনাদের সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করুন। আজ ও কালের মধ্যে আমাদের পেঁয়াজ দেওয়া না হলে আমরা এই পচা পেঁয়াজ নিব বলে জানিয়েছে। এই পেঁয়াজ নিয়ে ইতিমধ্যে আমরা অর্ধকোটি টাকার লোকসানে পড়েছি।