করোনার মধ্যেও চলছে প্রাইভেট বাণিজ্য

দেশে মহামারি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় সরকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ কোচিং ও প্রাইভেট পড়ানো বন্ধ ঘোষণা করলেও বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকেরা তা উপেক্ষা করে কোনো প্রকার সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখেই নয়া কৌশলে তাদের বাসায় প্রাইভেট বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে উপজেলায় করোনা সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলায় সব প্রকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও সরকারি নির্দেশকে উপেক্ষা করে আদমদীঘি উপজেলা সদর, সান্তাহার, চাঁপাপুর কুন্দগ্রাম, নসরতপুর, ছাতিয়ানগ্রাম, মুরইলসহ অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক শ্রেণির অর্থলোভী শিক্ষক এ মহামারি করোনা সংক্রমণের মধ্যেই কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় না মেনে তাদের বাসায় শিক্ষার্থীদের জড়ো করে নয়া কৌশলে অবাধে প্রাইভেট বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষকেরা শিক্ষার্থীদের স্কুলব্যাগ ও পোশাক ব্যবহার না করে চটের ব্যাগে পাঠ্যবই নিয়ে শিক্ষকদের বাসায় প্রবেশ করে মূল দরজা বন্ধ করে গাদাগাদি করে বসিয়ে প্রাইভেট পড়ান।

আদমদীঘি সুরমা ক্লিনিকের পেছনে আইপিজে উচ্চ বিদ্যালয়ের অংশ শিক্ষক নুর ইসলাম মিঠুর বাসায় গত সোমবার সকালে দেখা গেছে, প্রায় ১৫ জন ছেলে-মেয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে বেঞ্চে গাদাগাদিভাবে বসিয়ে পাঠদান করাচ্ছেন।

শিক্ষক নুর ইসলাম মিঠু বলেন, শিক্ষার্থীদের অনুরোধে বাসায় প্রাইভেটের ব্যবস্থা করি।

আদমদীঘি আইপিজে পাইলট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনজু আরা বেগম জানান, কোনো শিক্ষক সরকারি নির্দেশ অমান্য করে প্রাইভেট পড়ালে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।