যারা আল্লার ভরসায় রয়েছেন, তারাই ক’রোনায় আক্রা’ন্ত হচ্ছেন: দিলীপ ঘোষ

প্রা’ণঘাতী করোনা ভা’ইরাস নিয়ে মুসলমানদের কটাক্ষ করলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের

বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বললেন, ‘যারা আল্লার ভরসায় রয়েছেন, তারাই

করোনায় আ’ক্রান্ত হচ্ছেন’ বিজেপি সাংসদের এই মন্তব্যে স’মালোচনার ঝড় উঠেছে

রাজনৈতিক মহলে।এদিকে লকডাউনের নিয়ম অমান্য করে দিল্লির নিজামুদ্দিন

মসজিদে গাদাগাদি হয়ে ছিলেন দেশি-বিদেশি মিলিয়ে হাজার দু’য়েক লোক। সেখান

থেকেই সারা দেশে হু হু করে করোনা আ’ক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ওই সমাবেশ থেকে

পশ্চিমবঙ্গেও করোনা ছড়ানোর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। সেই প্রসঙ্গেই নাম না করে

মুসলমানদের আক্রমণ করলেন দিলীপ ঘোষ। গতকাল বুধবার দুস্থদের হাতে ত্রাণ

সামগ্রী তুলে দিতে হাওড়া গিয়েছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন সায়ন্তন বসুও। সেখানেই

সাংবাদিকদের নাম না করেই রাজ্য করোনা আ’ক্রান্ত ক্রমশ বেড়ে চলায় করোনার

পিছনে মুসলিমদেরই দায়ী করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।তিনি বলেন, ‘বিদেশ থেকে

বহু মানুষ এখানে আসছেন। টুরিস্ট ভিসা নিয়ে আসেন। যেহেতু বিশেষ সম্প্রদায়ভুক্ত

তাই তাদের কিছু বলা যাবে না। আর তার পরিণামই আমরা এখন ভোগ করছি।’

মন্দির করোনা মোকাবিলায় সাহায্যের হাত বাড়ালেও মসজিদ সে অর্থে এগিয়ে আসেনি,

এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন সাংসদ। তিনি বলেন, যারা আল্লাহর

দয়ায় সুস্থ হবেন বলছেন তারাই আক্রান্ত হচ্ছেন। তার বক্তব্য, মন্দির জমায়েত বন্ধ

করলেও এগিয়ে আসছেন না মসজিদ।এদিকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে ৭১ জন নিজামুদ্দিন

মসজিদের সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন বলে সাংবা সম্মেলনে জানিয়েছেন রাজ্য

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। সেইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ৭১ জনের মধ্যে ৫৪ জনকে

এরই মধ্যে কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী জানান, ৫৪ জনের মধ্যে ৪০ জনই

বিদেশি। দিল্লির মারকাজ নিজামুদ্দিন মসজিদে একটি ধর্মীয় জমায়েত উপলক্ষে জড়ো

হওয়া মানুষজনের মধ্যে অন্তত সাত জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে

আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এই সম্মেলনের জেরেই দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ

ভয়াবহ আকার নিতে পারে বলে মনে করছে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।