জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। তবে আশঙ্কার বিষয় হচ্ছে তার স্বাস্থ্যগত অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি বরং তা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে।

ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করতে হচ্ছে তাকে। তার শরীরে ইতোমধ্যে করোনা মারাত্মক প্রভাব ফেলেছে। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পরিবর্তে এই মুহূর্তে করোনা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার দায়িত্বে আছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বিবিসি রেডিও ৪’র সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, মাঝে মাঝে প্রধানমন্ত্রীকে অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হচ্ছে।

গত ২৭ মার্চ নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন জনসন। এর ১০ দিন পরও জ্বর, কাশিসহ উপসর্গগুলো না কমায় রবিবার তাকে সেন্ট্রাল লন্ডনের সেন্ট টমাস হাসপাতালে

ভর্তি করানো হয়। তার পরিবর্তে প্রধানমন্ত্রীর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব। ‘এখনো তাকে (জনসন) ভেন্টিলেটরে নেয়ার প্রয়োজন পড়েনি। তবে অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হয়েছে, জানিয়ে বুধবার সকালে গভ বলেন, ‘সেন্ট টমাস দেশের সবচেয়ে ভালো হাসপাতাল। সবচেয়ে ভালো চিকিৎসকেরা আছেন সেখানে। আশা করি তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।’

জনসনের অফিস ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট থেকে বলা হয়েছে, চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে অক্সিজেন দেওয়া হলেও এখনো জ্ঞান রয়েছে। জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির মঙ্গলবার রাতের হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১৭১। বিশ্বে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লাখ ২৯ হাজার ছাড়িয়েছে, মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮২ হাজার ৭৪।