লা’শের মিছিল বাড়ছেই, করোনায় মৃ’তের সংখ্যা ২৪ হাজার ছাড়ালো

মিনিটে মিনিটে বাড়ছে করোনায় মৃত্য মানুষের সংখ্যা। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যাও। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের লাইভ তথ্যমতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৩১ হাজার ৮০৬ জন। অন্যদিকে মারা গেছেন ২৪ হাজার ৭৩ জন।
এর আগে বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ৫৯ মিনিটে মৃতের সংখ্যা ছিল ২৩ হাজার ২৮ জন। অন্যদিকে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ১০ হাজার ৫২৪ জন। কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে ১ হাজার ২৮জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে এ ভাইরাস। আক্রান্তের সংখ্যাও বেড়েছে ২০ হাজারের বেশি।

ওয়ার্ল্ডোমিটারসের লাইভ তথ্যমতে, ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে এখন পর্যন্ত ৮৫ হাজার ৩৭৭ জন সংক্রমিত হয়েছে এতে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ২৯৫ জনের। আক্রান্তের দিক থেকে এরপরই করোনার মূলকেন্দ্র চীনের অবস্থান।

তবে করোনায় মৃত্যুর দিক থেকে চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে ইউরোপের দেশ ইতালি। সেখানে একদিনেই ৭১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এতে ভাইরাসটিতে দেশটির মোট মৃতের সংখ্যা ৮ হাজার ২১৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে ৮০ হাজার ৫৮৯ জন।

অপরদিকে বাংলাদেশও ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস। দেশে এখন পর্যন্ত ৪৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের পাশাপাশি প্রাণ গেছে পাঁচজনের। এছাড়া কোয়ারেন্টাইনে আছেন আরো অনেকে। যাদের মধ্যে অধিকাংশই বিদেশফেরত।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস মানুষ ও প্রাণীদের ফুসফুসে সংক্রমণ করতে পারে। ভাইরাসজনিত ঠাণ্ডা বা ফ্লুর মতো হাঁচি-কাশির মাধ্যমে মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস। ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হওয়ার প্রধান লক্ষণগুলো হলো- শ্বাসকষ্ট, জ্বর, কাশি, নিউমোনিয়া ইত্যাদি। তাছাড়া শরীরের এক বা একাধিক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নিষ্ক্রিয় হয়ে আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু হতে পারে।

এ ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় সংক্রমিত ব্যক্তিদের থেকে দূরে থাকা। তাই মানুষের শরীরে এমন উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চীনা বিজ্ঞানীরা।