দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক শেষে যা বললেন ইরানের বিদেশমন্ত্রী!

আমেরিকা এবং অ’গ্নিগ’র্ভ মধ্যপ্রাচ্যের ভূ-রাজনীতি। এই প্রেক্ষাপটে বুধবার ভারতের

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন ইরানের বিদেশমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। দিল্

অনুষ্ঠিত ‘রাইসিনা সংলাপ, ২০২০ সালের অংশ নিতে রাজধানীতে আছেন ইরানের

বিদেশমন্ত্রী। তার অবকাসেই প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। মোদির সঙ্গে

বৈঠকের আগে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গেও আলোচনা হয় জাভেদ জারিফের।

এদিকে, ভারতের সঙ্গে ইরানের এই ‘বন্ধুত্বের’ ওপরে আমেরিকা নজর রাখছে বলে খবর। এদিকে, রাইসিনা সংলাপে ভাষণ দিতে গিয়ে কাসেম সুলাইমানিকে হ’ত্যার জন্য মার্কিন

যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করেন ইরানের বিদেশমন্ত্রী। সুলাইমানির মৃ’ত্যুতে ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং

সে দেশের বিদেশ সচিবের পাশাপাশি জ’ঙ্গি সংগঠন আইএস ‘উৎসব করছে’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ইরানের বিদেশ মন্ত্রীর কথায়, ‘আমারিকা গোটা বিষয়টিতে তার নিজের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছে। তারা গোটা অঞ্চলের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছে না। কাসেম সুলাইমানিকে হ’ত্যার মধ্যে

আমেরিকার ঔ’দ্ধ’ত্য এবং বে’পরো’য়া মনোভাবের বহিপ্রকাশ ঘটেছে। আইএস জ’ঙ্গি

সংগঠনের বি’রু’দ্ধে ‘একমাত্র সবথেকে কার্যকরী ক্ষ’মতার অধিকারী ছিলেন জেনারেল সুলাইমানি’ আর এই কারণে আমেরিকা তাকে পছন্দ করত না।

উল্লেখ্য, ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকরই উদ্যোগ নিয়েছিলেন। যু’যুধান দুই দেশ ইরান ও

আমেরিকা ভারতের বন্ধু। চীন-পাকিস্তান যুগলব’ন্দিকে রু’খতে নিজের স্বার্থে ভারতের দরকার ইরানকে, দরকার আমেরিকাকেও। তাই ইরান-আমেরিকা সং’ঘাতে আখেরে ক্ষ’তি ভারতেরও।

কারণ কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে কো’ণঠা’সা করতে হলে বালুচিস্তানের স্বাধীনতা নিয়ে

ভারতের কৌশলগত অবস্থান মজবুত করতে হলে সারা বছর পাশে দরকার ইরানকে। সস্তায় তেল, চাবাহার সমুদ্রবন্দরের নিরা’পত্তা দিতে ইরানকে দরকার।

অন‌্যদিকে, চীনের আধি’পত‌্যবাদ এবং পাকিস্তানকে সামনে রেখে চীনের ভারত বিরো’ধী

অবস্থানকে প্রতিহ’ত করতে দরকার আমেরিকাকেও। তাই ইরান-আমেরিকার সং’ঘা’ত দূর

করতে, দুই দেশকেই আলোচনার টেবিলে বসাতে ভারত অতি স’ক্রি’য় হয়ে ওঠে। ইরানও ভারতের শান্তি প্রস্তাব লুফে নেয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও ভারতের এই মধ‌্য’স্থতা

ও শান্তির উদ্যোগে নারাজ হননি। এই পরিস্থিতিতে বিদেশমন্ত্রী জয়শংকর মধ‌্যপ্রাচ্যে উত্তে’জনা কমাতে ভারতে আসার আমন্ত্রণ জানান ইরানের বিদেশমন্ত্রীকে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের মধ্যে উত্তে’জনার পা’রদ ক্র’মশ চ’ড়ছে। এরমধ্য ইরানের

বিদেশমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বুধবার নয়াদিল্লি পৌঁছেই দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির

সঙ্গে। মোদি তাকে জানান, মধ‌্যপ্রাচ্যে শান্তি পেরাতে ভারত ব’দ্ধপরিকর। ভারত চায় ইরান

এবং আমেরিকা দুই দেশই একে অপরের সার্বভৌ’মত্বকে সম্মান করুক। দুই দেশই নিজেদের বিরত রাখুক। তারপর শুরু হবে শান্তিপ্রক্রিয়া।