ঘুষ চাওয়ায় অফিসে ৪০টি সাপ ছেড়ে দিল কৃষক!

ঘুষ চাওয়া আর দেওয়া সমাজের নতুন কোন সমস্যা না। অফিসিয়াল কোন কাজ উনিশ থেকে কুড়ি করলে লাগবে ঘুষ। আর এই ঘুষ মানে না ধনী-গরীব। ঘুষ চাওয়ায় এক কৃষক আয়কর অফিসের ভেতরে ৪০টি সাপ ছেড়ে দিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের লক্ষেষ্টৗর একটি এলাকায়।

জানা গেছে, কর্মকর্তাদের ঘুষের দাবিতে ক্ষিপ্ত হয়ে দুই কৃষকই এমন কা’ণ্ড ঘটিয়েছেন। তিনটি ব্যাগভর্তি সাপ নিয়ে তারা অফিসে যান এবং সব ক’টিই সেখানে ছেড়ে দেন। তিনটি ব্যাগে গুনে গুনে ৪০টি সাপ ছিল।

ঘুষ চাওয়ায় প্রতিশোধ হিসেবে অফিসে সাপ ছেড়ে দেওয়ার এ আলোকচিত্র সেখানকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সাড়া জাগিয়েছে। কেউ কেউ মজা করে বলছেন, এভাবেই তাহলে দেশ থেকে দু’র্নীতি দূর করা যাবে!

আর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ভয়ে আশ্রয় নিয়েছেন কক্ষের একপাশে টেবিলের ওপরে। একজন টেবিলক্লথ নাড়িয়ে সাপ তাড়ানোর চেষ্টা করছেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়ান টাইম ‘র খবর অনুযায়ী, হাক্কুল নামের এক বেদে রাষ্ট্রপতিকে জমির জন্য চিঠি লিখেছিলেন। এর জবাবে রাষ্ট্রপতির দপ্তর স্থানীয় প্রশাসনকে জমিসংক্রান্ত সব কাগজ তৈরি করতে ও জমি দেওয়ার প্রক্রিয়া শেষ করার তাগিদ দেয়। কিন্তু এ কাজ দ্রুত শেষ করার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের এক কর্মকর্তা ঘুষ দাবি করেন। আর তাতে বির’ক্ত বেদে প্রতিশোধ নিতে এবং কর্মকর্তাদের ভয় দেখাতে অফিসে সাপ ছেড়ে আসেন।

ক্যান্সারসহ ৭ রোগ প্রতিরোধে আখের রস

অতিরিক্ত চিনি জাতীয় খাবার ওজন বাড়ায় এ কথা আমরা সবাই জানি। ওজন কমাতে সব রকম শর্করাজাতীয় খাবার বাদ দিচ্ছেন।

তবে আখের রস মিষ্টি হলেও ওজন বাড়ে না বরং কমে। এছাড়া এ আখের রসের রয়েছে নানা উপকারিতা। আখের রস আছে বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা।

পুষ্টিবিজ্ঞানের তথ্যানুসারে এমন খবর দিয়েছে স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইট।

আসুন জেনে নেই আখের রস যেসব রোগ প্রতিরোধ করে।

১. আখের রস খেলে বিপাকীয় গতি বাড়িয়ে দেয়। বাড়ে কর্মশক্তি। ওজন কমানোর ক্ষেত্রে এই দুটিই জরুরি।

২. ভোজ্য আঁশ প্রচুর পরিমাণে থাকায় খাবার ও পানীয় হজমে সাহায্য করে।

৩. কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে আখের রস। মলের ওজন বাড়ায় আঁশ। যা পক্ষান্তরে তার অপসারণকে সহজ করে।

৪.জন্ডিস ও অন্যান্য যকৃতের রোগ প্রতিরোধ আখের রসের বিকল্প নেই।

৫. আখের রসে থাকা ‘গ্লাইকোলিক অ্যাসিড’ এর মতো ‘আলফা-হাইড্রক্সি অ্যাসিডস(এএইচএ) ত্বকের জন্য উপকারী। এছাড়া ব্রণ প্রতিরোধে করে।

৬. আখের রসে থাকা ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও অন্যান খনিজ উপাদান দাঁতের ‘এনামেল’ শক্তিশালী ও ক্ষয়রোধ করে।

৭. ক্যান্সার প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে আখের রস। বিশেষ করে প্রস্টেট ও স্তন ক্যান্সারের ক্ষেত্রে। আখে থাকা ‘ফ্লাভানয়েড’ ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষকে ছড়াতে দেয় না।

তবে আখের রস খেতে হলে বাড়িতে তৈরি করে খান। মনে রাখবেন নোংরা যন্ত্রের সাহায্যে তৈরি করা আখের রস মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়।