গতি পাল্টে আরও শক্তিশালী হয়ে ধেয়ে আসছে ‘বুলবুল’

গতি পাল্টে আরও শক্তিশালী হয়ে বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। আয়লার চেয়েও বেশি ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়ে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, ঘণ্টায় ১০০-১২০ বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে উপকূলের দিকে ছুটে আসছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। এ গতি আরও ক্রমশ বেড়েই চরছে।

এদিকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আলিপুর আবহাওয়া দফতর বলছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল প্রচণ্ড শক্তি সঞ্চয় করেছে। এর ফলে প্রাথমিকভাবে শনিবার মধ্যরাতে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলীয় এলাকা ও বাংলাদেশের খেপুপাড়ার দিকে আছড়ে পড়ার কথা থাকলেও তার আগেই অর্থাৎ শনিবার সন্ধ্যা কিংবা তার পরপরই আঘাত হানতে পারে বুলবুল।

চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৯ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হলেও কক্সবাজারে ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত বহাল রাখা হয়েছে। এছাড়া উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ৭ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরাঞ্চলকে ৬ নম্বর বিপৎসংকেত দেখা বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, ভোলা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৫ থেকে ৭ ফুট বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

বাংলাদেশের আবহাওয়া দফতরের কর্মকর্তারা বলেছেন, অতিপ্রবল এই ঘূর্ণিঝড় শনিবার সন্ধ্যার দিকে উপকূল অতিক্রম করতে পারে। যদিও এর আগে বলা হয়েছিল বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আঘাত হানতে পারে শনিবার মধ্যরাতে। কিন্তু সময়ে সময়ে গতিপথ ও শক্তি পাল্টে দ্রুত এগোতে থাকায় শক্তিশালী এই ঝড় শনিবার সন্ধ্যায় আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে।