ঘূর্ণিঝড়ের গুরুত্বপূর্ণ কিছু দিক-নির্দেশনা

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ বাংলাদেশের খুব সন্নিকটে চলে এসেছে। দুপুরের পরপরই এটি আছড়ে পড়তে পারে দেশের উপকূলে। মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর এবং চট্টগ্রাম বন্দরকে ৯ নম্বর মহা বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ের আগে, ঝড়ের তাণ্ডব চলার মধ্যে এবং ঝড় থেমে যাওয়ার পর কী করা উচিত আর কী করা উচিত নয়, সে বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি জনসচেতনতামূলক বার্তা দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। বিডি২৪লাইভের পাঠকদের জন্য হুবহু সেই বার্তা তুলে ধরা হল-

ঘূর্ণিঝড়ের আগে

১. যথাসম্ভব নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করুন।

২. এই সময়ে অনেক গুজব রটে। সেসবে কান দেবেন না।

৩. জরুরি প্রাথমিক চিকিৎসা সামগ্রী কাছে রাখুন।

৪. লোকের মুখের কথা না শুনে, শুধুমাত্র সরকারি বার্তায় বিশ্বাস রাখুন।

৫. ঝড়ে গাছ পড়ে গিয়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হতে পারে। তাই নিজের মোবাইল ফোন আগেই সম্পূর্ণ চার্জ দিয়ে রাখুন। বিপদের সময় যেকোনো মুহূর্তে মোবাইলের দরকার হতে পারে।

৬. পোষ্যদেরও বাড়ির ভেতর নিরাপদ স্থানে রাখুন।

ঘূর্ণিঝড়ের সময়

১. ঝড় শুরু হলে প্রথমেই বাড়ির ভেতরের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দিন। তা না হলে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

২. ঘরের দরজা-জানালা ভাল করে বন্ধ রাখুন। ফুটানো বা ক্লোরিন দেওয়া পানি পান করুন।

৩. ঝড়ের সময় যদি রাস্তায় থাকেন, তা হলে যত দ্রুত সম্ভব কোনো সুরক্ষিত স্থানে আশ্রয় নিন। গাছ বা বিদ্যুতের খুঁটির নিচে দাঁড়াবেন না।

৪. রেডিও/ট্রানজিস্টারে খবর শুনুন।

ঘূর্ণিঝড়ের পর

১. ঝড়ে ক্ষতি হয়েছে এমন কোনো বাড়িতে আশ্রয় নেবেন না।

২. ছিঁড়ে পড়ে থাকা বিদ্যুতের তারে হাত দেবেন না।